দি  ইন্সটিটিউট ফর কুরআনিক রিসার্চ এন্ড এ্যাপ্লিকেশন (ইক্বরা)

লক্ষ্য

ইক্বরার লক্ষ্য হলো বর্তমান ও ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য স্রষ্টার ঐশী বাণীর সমন্বিত অধ্যয়ন ও সার্বজনীন প্রয়োগের জন্য জ্ঞানদীপ্ত অনুশীলন।

উদ্দেশ্য

ইক্বরার উদ্দেশ্য হলো কুরআনের বাণীর উত্তরোত্তর সমৃদ্ধ অনুধাবনের জন্য টেকসই ভিত্তি প্রস্তুত করা এবং জীবন ও সমাজের প্রায়োগিকতার জন্য প্রয়োজনীয় জ্ঞানভিত্তিক ফ্রেমওয়ার্ক বা কাঠামো নির্মাণ।

প্রকাশিত বইসমূহ

ঐতিহাসিকদের হাদীস সম্পর্কে সন্দিহান হওয়ার ২১টি কারন

মূল ইংরেজী আর্টিকেল থেকে বাংলায় অনুবাদ: তারেক হাসান

২৮ জানুয়ারী, ২০২২-এ, ডঃ জাভেদ হাশমি অক্সফোর্ড স্কলার ড. জোশুয়া লিটলের সাক্ষাতকার নিয়েছিলেন, তার ইউটিউব চ্যানেল- দ্য ইমপ্যাক্টফুল স্কলারে। সাক্ষাত্কারে, ড. জোশুয়া লিটল ২১টি কারণ উপস্থাপন করেছেন যেসব কারণে ঐতিহাসিকরা হাদিস সম্পর্কে সন্দেহ প্রবন। সাক্ষাত্কারে, ডাঃ লিটল উল্লেখ করেছেন যে এই সমস্ত পয়েন্টগুলি তার আসন্ন বইতে থাকবে, তবে নীচে বিশেষ ২১টি পয়েন্ট তার নিজের ব্যক্তিগত মন্তব্যসহ উল্লেখ করা হল। 

১. পূর্ব সম্ভাবনা

ইতিহাসবিদদের মধ্যে এটি একটি সাধারণ ঐকমত্য যে সমস্ত ধর্মীয় বিশ্বাসের লোকেরা তাদের কাজকে মিথ্যাভাবে বৈশিষ্ট্যযুক্ত করার জন্য পরিচিত। এটি পৌত্তলিক, ইহুদি এবং খ্রিস্টানদের কাছ থেকে পাওয়া ঐতিহাসিক তথ্যের ক্ষেত্রে দেখা গেছে। অতএব, মুসলমানদের তথ্য ভিন্ন হতে হবে এমন ধারণা করা উচিত নয়। ইতিহাসবিদদের অবশ্যই ধরে নিতে হবে যে লোকেরা অসৎ এবং তারপর তাদেরকে সৎ হিসাবে দেখানোর বা প্রমাণ করার চেষ্টা করবে। যেহেতু ঐতিহাসিকভাবে, পরিস্থিতি অন্যান্য ধর্মীয় গোষ্ঠীর জন্য একই ছিল, তাই এটা ভাবা শিশুসুলভ হবে যে মুসলমানরা এক্ষেত্রে ভিন্ন। এই দৃষ্টিকোণ থেকে, সেই সময়ের মুসলিমরা একক একটি উম্মাহ ছিল না। সেখানে অসংখ্য উপদল, উপজাতি, ধর্মতাত্ত্বিক বোঝাপড়া, প্রতিযোগী তত্ত্ব, সংঘর্ষ, যুদ্ধ এমনকি গৃহযুদ্ধও ছিল। এই সব বিষয় গুলি এমন একটি পরিবেশ তৈরি করে যেখানে ব্যক্তিদের তাদের অবস্থানকে শক্তিশালী করার জন্য বানোয়াট উৎস তৈরি করার জন্য সহায়ক সহযোগী থাকবে। উপরন্তু, সেই সময়ে, তথ্য সংগ্রহ ও প্রেরণের জন্য কোন কঠোর বৃত্তি এবং প্রতিষ্ঠান বা এর সত্যতা যাচাই করার জন্য একটি সামঞ্জস্যপূর্ণ পদ্ধতি ছিল না। এ সকল বিষয় হাদিস সংকলনের মধ্যে অনেক নোংরা কাজকে প্রবেশের জন্য সুযোগ খুলে দিয়েছিল।

২. উৎসের বিলম্বতা বা দূরত্ব

সংকলিত অধিকাংশ হাদীস সাহিত্য প্রথম ৮ম শতাব্দীতে সংকলিত হয়েছিল। যা ইতিহাসবিদরা জানেন তার মধ্যে প্রাচীনতম কিছু সংগ্রহ পাওয়া যায় তা ইবনে ইসহাকের (কিতাব আল-মাগাজি) থেকে এসেছে, যিনি ৭৬৭ খ্রিস্টাব্দের দিকে মারা গিয়েছিলেন- নবীজির মৃত্যুর প্রায় ১৩৫ বছর পরে। কিন্তু ইতিহাসবিদদের কাছে তার প্রত্যক্ষ কোন তথ্য নেই, বরং শুধুমাত্র তার ছাত্র এবং সেই ছাত্রদের ছাত্রদের দ্বারা ৯ম শতাব্দীতে তার তথ্য সমূহ উল্লেখ রয়েছে। হাদিসের প্রথম লিখিত সংকলনটি ছিল ইমাম মালিকের মুয়াত্তা যা হযরত মুহাম্মদের মৃত্যুর ১৫০ বছর পরে লেখা হয়েছিল। সুতরাং হাদীসের এসকল উপাদান প্রকৃত উৎস থেকে বেশ দূরে, এবং এই দীর্ঘ সময়ের ফলে মিথ্যা, বিকৃতি, বানোয়াট ও ভুল তথ্যের প্রসার ঘটেছে।

৩. সম্পূর্ণ বৈপরিত্য

হাদিসের দলিলসমূহ দ্বন্দ্বে পরিপূর্ণ। যেমন ড. হাশমী বলেছেন, প্রতিটি হাদীসের জন্য সমানভাবে বৈধ বিপরীত হাদীস রয়েছে। এমনকি সহজতম তথ্যগুলিও বেমানান। যেমন, নবীর মৃত্যুকালে কত বছর বয়স হয়েছিল এবং মক্কা ও মদিনায় তিনি কত বছর বসবাস করেছিলেন? শুধুমাত্র বুখারি এবং মুসলিম  থেকে বর্ণনা করা হয়েছে যে তিনি ৬০, ৬৩ বা ৬৫ বছর বয়সী ছিলেন। এই বিরোধপূর্ণ বয়সগুলির বর্ণনার মধ্যে কিছু বর্ণনা একই ব্যক্তির থেকে এসেছে বলা হয়। আবু বকর এবং উসমানের বয়সের ব্যাপারেও এমন তথ্য পাওয়া যায়, যেখানে বলা হয়েছে যে তারা সকলেই মারা গিয়েছিলেন যখন তারা ৬৩ বছর বয়সে ছিলেন, যা আসলে ঠিক ছিল না। কুরআনের প্রথম বা শেষ অবতীর্ণ আয়াত কোনটি তা নিয়ে  মতবিরোধ রয়েছে। যে হাদিসটিকে "প্রমাণিত (সহীহ)" বলে গণ্য করা হয় তা যদি এই ধরনের বিশেষ মৌলিক তথ্যের ক্ষেত্রে ভুল হয়, তবে তারা অন্যান্য যে সকল বিষয় বর্ণনা করে সেক্ষেত্রে কতটা নির্ভরযোগ্য বলে বিবেচনা করা উচিত।

সাক্ষাত্কারের ১ ঘন্টা এবং ১ মিনিটের সময়, ডঃ জাভেদ হাশমি বলেছেন যে তিনি ব্যাখ্যামূলক হাদীসের উপর ব্যাপক গবেষণা করেছেন যা কুরআনের আয়াতগুলিকে প্রাসঙ্গিক বা একপেশে করার চেষ্টা করে (শানে নুযুল বা আসবাব আল-নুজুল এর মাধ্যমে) এবং এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন যে এই হাদীসগুলি সবই নিরেট অনুমান। 

"ইবনে আব্বাস হাদীসের বর্ণণায় একই আয়াতের তিন বা চারটি পরস্পরবিরোধী ব্যাখ্যা উপস্থাপন করা হয়েছে। এ ধরনের বিষয়গুলো হাদীসে খুব সাধারণ ও সচরাচর।"

- হার্বার্ট বার্গ (Herbert Berg)

৪. রাজনৈতিক প্রচারমূলক বর্ণণা

অনেক হাদিস তার সময়ের রাজনৈতিক প্রচার। এটি রাজনৈতিক প্রপোগান্ডা প্রচারের মাধ্যমে শুনে ইতিহাস বোঝার চেষ্টা করার মত বিষয়। প্রতিটি গ্রুপই এই দাবির ন্যায্যতা প্রমাণ করার চেষ্টা করে যে, কি কি কারণে তাদের একজন ব্যক্তি বা গোষ্ঠী অন্যদের চেয়ে নবীর নিকটবর্তী এবং বেশি প্রিয় ছিল। কিছু উদাহরণ যেমন- 'আয়েশা মহিলাদের মধ্যে সর্বোত্তম মুমিনা নারী ছিলেন, তিনি ছিলেন হযরত মুহাম্মদের প্রিয় স্ত্রী; আলী ছিলেন মুহাম্মদের কাছে তেমন একজন, যেমন হারুন ছিলেন মূসার কাছে; খলিফা অবশ্যই কুরাইশদের মধ্য থেকে হতে হবে; যে কয়েকটি দলকে তাদের বিশ্বাসের জন্য হত্যা করা জায়েজ; ইত্যাদি। 

“আমি পরামর্শ দিচ্ছি না যে আল-বুখারি বা ইবনে হাম্বলের মতো হাদীস সংগ্রাহকরা ঐতিহাসিক সমালোচনামূলক পদ্ধতির অগ্রদূত ছিলেন- যেমনটা পশ্চিমা স্কলারদের একটি দল তুলে ধরছে। এমনকি শীর্ষস্থানীয় সহীহাইনও ইসলামের প্রথম দুই শতাব্দীর রাজনৈতিক, আইনগত এবং সাম্প্রদায়িক দ্বন্দ বিবাদ উদ্ভূত অসঙ্গতিপূর্ণ বর্ণনায়  পরিপূর্ণ।"

- জোনাথন ব্রাউন (আমরা কীভাবে জানি প্রারম্ভিক হাদিস সমালোচকরা মতনের সমালোচনা করেছিলেন এবং কেন এটি খুঁজে পাওয়া এত কঠিন) How We Know Early Hadith Critics Did Matn Criticism and Why Its So Hard to Find

৫. ঐতিহাসিক কালের সাথে সামঞ্জস্যহীন

হাদিসে উল্লেখিত ভবিষ্যদ্বাণীগুলোকে দুটি ভাগে ভাগ করা যায়- সুনির্দিষ্ট এবং অস্পষ্ট। কিছু হাদীসের ভবিষ্যদ্বাণীগুলি, যেগুলি খুব সুনির্দিষ্ট ছিল সেগুলি ৯ম শতাব্দীর আগে ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলি নিয়ে আলোচনা করে, ঠিক যেমন হাদিসের সমালোচনা আরও বাড়তে থাকে, এবং স্পষ্ট বানোয়াট হাদীস সনাক্তকরণের পদ্ধতি  প্রতিষ্ঠিত হওয়ার সময়। তাই ঠিক যখনই জনসাধারণ আরও সন্দেহজনক এবং অনুসন্ধানী হয়ে ওঠে, ভবিষ্যদ্বাণীপূর্ণ হাদিসও ব্যাখ্যার জন্য আরও উন্মুক্ত এবং কম সুনির্দিষ্ট হয়ে উঠে। এটি ইঙ্গিত দেয় যে, সম্ভবত, হাদিস সাহিত্যে খুব বিশদ ভবিষ্যদ্বাণীগুলি,  ভবিষ্যদ্বাণী করা ঘটনা থেকে পরবর্তী বাস্তবতার আলোকে তৈরি হয়েছিল। অন্যথায়, হাদিস সমালোচনার পর সুনির্দিষ্ট ভবিষ্যদ্বাণী কেন হঠাৎ বন্ধ হয়ে যাবে, তা বোঝা যায় না।

৬. অতিপ্রাকৃত উপাদান

অনেক হাদিস নবীকে অতিপ্রাকৃত হিসাবে দাবি করে। কিছু উদাহরণ নিম্নরূপ:

  • তিনি চাঁদকে অর্ধেক ভাগ করেছেন
  • তার আঙুল থেকে এক হাজারেরও বেশি লোকের অজু করার জন্য পানির ফোয়ারা প্রবাহিত হয়
  • যখন তিনি খাবেন তখন তার খাবার আল্লাহর মহিমা ঘোষণা করবে
  • তাঁর অবসর ও বিশ্রামের সময়ে স্বস্তি দেওয়ার জন্য গাছপালা তাঁর সাথে হেঁটেছিল এবং তাঁকে ছায়া দিয়েছিল
  • একটি গাছ উচ্চস্বরে কেঁদেছিল, কারণ তিনি ধর্ম উপদেশের সময় সে গাছটির ব্যবহার করা বন্ধ করছিলেন
  • গাছ এবং পাথর নবীর সাথে কথা বলেছিল
  • তিনি সূর্যকে আটকাতে পেরেছিলেন
  • তিনি বৃষ্টিকে আদেশ করতে পেরেছিলেন
  • তিনি জনসাধারণের জন্য প্রার্থনার মাধ্যমে খাদ্য ও পানির ব্যবস্থা করতে সক্ষম হয়েছিলেন

এই দাবীগুলো নিয়ে সন্দেহ করার ঐতিহাসিক কারণ হল এগুলো অতিপ্রাকৃত, কিন্তু একজন মুমিন ব্যক্তি, যিনি অতীন্দ্রিত প্রমাণিত বিষয়গুলোতে বিশ্বাস করেন, তার পক্ষে এই দাবীগুলোকে সন্দেহ করার একটা সাধারন ও সহজ কারণ হল এটা কুরআনে যা স্পষ্টভাবে বলা হয়েছে তার বিরোধিতা করে যে, হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) শারীরিক অলৌকিক কোন কিছু পাননি। তাঁকে দেওয়া অলৌকিক বিষয় ছিল একমাত্র কুরআন।

وَيَقُولُونَ  لَوْلَا  أُنزِلَ  عَلَيْهِ  آيَةٌ  مِّن  رَّبِّهِ  فَقُلْ  إِنَّمَا  الْغَيْبُ  لِلَّهِ  فَانتَظِرُوا  إِنِّي  مَعَكُم  مِّنَ  الْمُنتَظِرِينَ

[১০:২০] তারা বলে, কেন তার প্রতি তার পালনকর্তার পক্ষ থেকে কোন অলৌকিক ঘটনা অবতীর্ণ হল না? বলুন, ভবিষ্যৎ আল্লাহর।  সুতরাং তোমরা অপেক্ষা করুন, এবং আমিও তোমাদের সাথে অপেক্ষা করছি।"

وَيَقُولُ  الَّذِينَ  كَفَرُوا  لَوْلَا  أُنزِلَ  عَلَيْهِ  آيَةٌ  مِّن  رَّبِّهِ  إِنَّمَا  أَنتَ  مُنذِرٌ  وَلِكُلِّ  قَوْمٍ  هَادٍ

[১৩:৭] কাফেররা বলে, যদি তার কাছে তার পালনকর্তার পক্ষ থেকে কোন অলৌকিক ঘটনা নাযিল হতো (তবে আমরা বিশ্বাস করতাম)। আপনি কেবল একজন সতর্ককারী—প্রতিটি সম্প্রদায়ের জন্য রয়েছে একজন পথ প্রদর্শনকারী।

وَيَقُولُ  الَّذِينَ  كَفَرُوا  لَوْلَا  أُنزِلَ  عَلَيْهِ  آيَةٌ  مِّن  رَّبِّهِ  قُلْ  إِنَّ  اللَّهَ  يُضِلُّ  مَن  يَشَاءُ  وَيَهْدِي  إِلَيْهِ  مَنْ  أَنَابَ

[১৩:২৭] কাফেররা বলবে, যদি তার কাছে তার পালনকর্তার পক্ষ থেকে কোন অলৌকিক ঘটনা নাযিল হতো (আমরা বিশ্বাস করতাম)। বল, আল্লাহ যাকে ইচ্ছা বিপথগামী করেন এবং তিনি কেবল তাদেরই পথ দেখান যারা আনুগত্য করে।

وَقَالُوا  لَوْلَا  أُنزِلَ  عَلَيْهِ  آيَاتٌ  مِّن  رَّبِّهِ  قُلْ  إِنَّمَا  الْآيَاتُ  عِندَ  اللَّهِ  وَإِنَّمَا  أَنَا  نَذِيرٌ  مُّبِينٌ

[২৯:৫০] তারা বললঃ যদি তার প্রতি তার পালনকর্তার পক্ষ থেকে কোন অলৌকিক ঘটনা অবতীর্ণ হত! বলুন, "সমস্ত অলৌকিক ঘটনা শুধুমাত্র আল্লাহর কাছ থেকে আসে; আমি একজন প্রকাশ্য সতর্ককারী ছাড়া আর কিছু নই।"

أَوَلَمْ  يَكْفِهِمْ  أَنَّا  أَنزَلْنَا  عَلَيْكَ  الْكِتَابَ  يُتْلَىٰ  عَلَيْهِمْ  إِنَّ  فِي  ذَٰلِكَ  لَرَحْمَةً  وَذِكْرَىٰ  لِقَوْمٍ  يُؤْمِنُونَ

[২৯:৫১] এটা কি অলৌকিকতার জন্য যথেষ্ট নয় যে, আমি আপনার প্রতি এই কিতাব নাযিল করেছি, যা তাদের কাছে পাঠ করা হচ্ছে? এটা প্রকৃতপক্ষে বিশ্বাসী লোকদের জন্য রহমত ও উপদেশ।

وَمَا  مَنَعَنَا  أَن  نُّرْسِلَ  بِالْآيَاتِ  إِلَّا  أَن  كَذَّبَ  بِهَا  الْأَوَّلُونَ  وَآتَيْنَا  ثَمُودَ  النَّاقَةَ  مُبْصِرَةً  فَظَلَمُوا  بِهَا  وَمَا  نُرْسِلُ  بِالْآيَاتِ  إِلَّا  تَخْوِيفًا

[১৭:৫৯] যা আমাদেরকে আযাত বা অলৌকিক বিষয় পাঠাতে বাধা দিয়েছে তা হল, পূর্ববর্তীরা সেগুলোকে প্রত্যাখ্যান করেছে। উদাহরণস্বরূপ, আমরা সামুদকে উট দেখিয়েছিলাম, একটি গভীর অলৌকিক বিষয়, কিন্তু তারা তার বিরুদ্ধে সীমালঙ্ঘন করেছিল। আমরা অলৌকিক ঘটনাগুলো পাঠিয়েছি শুধুমাত্র শ্রদ্ধা জাগানোর জন্য।

উপরন্তু, যে কেউ কুরআনকে আল্লাহর বাণী হিসাবে গ্রহণ করে, এবং যদি কুরআনে একটি অলৌকিক ঘটনা বলা হয়ে থাকে,  তবে এটি বিশ্বাস করার জন্য যথেষ্ট ও যুক্তিযুক্ত; কিন্তু কুরআনে নির্দিষ্ট করা নেই এমন একটি অলৌকিক ঘটনা বিশ্বাস করার জন্য আরও অনেক প্রমাণের প্রয়োজন হবে। উদাহরণ স্বরূপ, হযরত মুহাম্মদ যদি চাঁদকে অর্ধেক ভাগ করে দেন বা সূর্যকে মুহূর্তের জন্য বন্ধ করে দেন, তাহলে আমরা আশা করব হাদিসের বাইরে ঐতিহাসিক নথিতে এ বিষয়ে অতিরিক্ত বিবরণ থাকবে, কিন্তু এ ধরনের কোনো বিবরণ কখনও পাওয়া যায়নি। দ্বিতীয়ত, যদি হাদিস সাহিত্যে উল্লেখিত অলৌকিক ঘটনাগুলো ঘন ঘন ঘটে থাকে, তাহলে হাদিস গ্রন্থে বিদ্যমান সীমিত সংখ্যক সাক্ষ্যের পরিবর্তে ঘটনাটির আরও অনেক সাক্ষ্য থাকা উচিত। 

৭. ব্যাপক বানোয়াট বর্ণনা

এটা সুপ্রতিষ্ঠিত যে মহাকাব্যিক পরিমাণে বানোয়াট সংগ্রহ ও রচনা করা হয়েছিল, প্রধানত উমাইয়াদের শাসনামলে। এটা এত বড় সমস্যা ছিল যে, হাদীসের অবিশ্বস্ততার দাবী মোকাবেলায় হাদীস বিজ্ঞানের পুরো ক্ষেত্র তৈরি করতে হয়েছিল।   যে কোনও ক্ষেত্রে, ব্যক্তিগত নোটকে "বিজ্ঞান" এর নামে  সন্নিবেশিত করা হলেও তা সাধারণত  প্রকৃত বিজ্ঞান থেকে অনেক দূরে।

“নিশ্চয়ই, আপনি এই হাদিসগুলি যার তদন্ত আমার অনুসন্ধানের সাথে যাচাই করে তুলনা করার জন্য [আমার আগে] এমন কাউকে পাওয়া যাবে না, যার অনুসন্ধান [হাদিসের জন্য তুলনীয়] আমার অনুসন্ধানের মত। আমি এটা [অর্থাৎ সাধারণভাবে হাদিস] পরীক্ষা করে দেখেছি যে এর এক তৃতীয়াংশও সঠিক নয়।”

“আমি এমন কাউকে জানি না যিনি হাদীস যাচাই করেছেন এবং [যার তদন্ত ছিল] আমার তদন্তের সাথে তুলনীয়। আমি আবিষ্কার করেছি যে এর তিন চতুর্থাংশ মিথ্যা।"

- সুবাহ বিন আল-হাজ্জাজ (মৃত্যু ৭৭৭  খ্রিষ্টাব্দ)

“একজন বিধর্মী (রাজুল মিন 'আহল আল-আহ') যে তার [মিথ্যা] মতবাদের জন্য অনুতপ্ত হয়েছিল - সে আমার সাথে কথা বলেছিল - সে বলেছিল: 'আপনি কার কাছ থেকে এই হাদিসগুলি নিয়েছেন তা সাবধানতার সাথে পরীক্ষা করুন, কারণ আমরা যখনই আমাদের একটি মতবাদ প্রতিষ্ঠার জন্য যুক্তি তৈরী করেছি, আমাদের প্রথম লক্ষ্য ছিল যে, আমরা এগুলোকে হাদীসে পরিণত করব।'

- আব্দুল্লাহ বিন লাহিয়াহ (মৃত্যু ৭৮৯-৭৯১ খ্রিষ্টাব্দ)

“আমি সালেহীন বা ধার্মিকদেরকে কোন বিষয়ে এমন দেখিনি, যে হাদিসের ব্যাপারে  তারা যেরকম সবচেয়ে বেশি বেঈমান ছিল। "

ma ra’aytu al-salihin / মা রায়তু আল-সালিহিন = “আমি সালেহীন বা ধার্মিকদেরকে কোন বিষয়ে এমন দেখিনি

fi-say’ ‘akdab min-hum fi al-hadit/  ফাই সি আকদাব মিন-হুম ফীল হাদীস = হাদিসের ব্যাপারে  সবচেয়ে বেশি বেঈমান ছিল

- ইয়াহিয়া বিন সাইদ আল-কাত্তান (মৃত্যু ৮১৩ খ্রিষ্টাব্দ)

এমনকি এটি নথিভুক্ত করা হয়েছে যে বুখারী নিজেই ৬ লক্ষ হাদিস যাচাই করেছেন, যার মধ্যে তিনি মাত্র ১% এরও কম হাদীসকে প্রামাণিক (সহীহ) বা যথেষ্ট নির্ভরযোগ্য বলে মনে করেছেন। সহীহ মুসলিমের ভূমিকায় হাদীসের বৃহৎ সংকলনগুলি উল্লেখ করা হয়েছে যা অবিশ্বস্ত বলে বিবেচিত হয়েছে এবং অনেক প্রসিদ্ধ বর্ণনাকারীদের দ্বারা বর্ণিত হাদীসগুলোকে কেন গ্রহন করা উচিত নয় তা উল্লেখ করা হয়েছে। কারণ তারা অবিশ্বস্ত বলে প্রতীয়মান হয়েছে। সুতরাং যেহেতু হাদীস শাস্ত্র বানোয়াট সাগরে সাঁতার কাটছে, তাই এটি সম্পূর্ণ সংগ্রহ কার্যক্রমকে সন্দেহজনক করে তোলে।

৮. গত হয়ে যাওয়া ইসনাদ বা পরম্পরা

৬৮৫-৬৮৭ খ্রিষ্টাব্দের আগে হাদিসের বিশ্বাসযোগ্যতা নির্ধারক ফ্যাক্টর হিসাবে বর্ণণা পরম্পরা বা ইসনাদ ধারাবাহিকতা ব্যবহার করার প্রয়োজনীয়তার উদ্ভব হয়নি। ঐ সময়ে কুফায় আল-মুখতারের (৬৮৫-৬৮৭ খ্রিষ্টাব্দে) বিদ্রোহের প্রতিক্রিয়া হিসাবে এর প্রয়োজনীয়তা উদ্ভূত হয়। যাকে দ্বিতীয় ফিতনার সময় বলা হয়। অষ্টম শতাব্দীর মাঝামাঝি পর্যন্ত এই প্রথা সাধারণভাবে প্রচলিত হয়ে ওঠেনি। এই সময়ের মধ্যে, অনেক প্রতিযোগিতামূলক স্বার্থ, অনেক বিবাদ, লড়াই, এবং সামগ্রিকভাবে কম ঐক্য এবং আরও তর্ককারী দলগুলি তাদের বলা তথ্যের জন্য সমর্থন খুঁজছিল। সত্যতার জন্য সাধারণ চাপের ফলে তাদের বর্ণনার অনুভূত বৈধতা বাড়ানোর জন্য তারা ইসনাদের পোস্ট-ফ্যাক্টো বা প্রমাণ তৈরি করতে অনেক বর্ণনাকারীর উপর চাপ সৃষ্টি করে।

 “তারা সাধারণত ইসনাদ জিজ্ঞেস করত না, কিন্তু যখন ফিতনা ঘটেছিল, তখন তারা বলেছিল: 'আমাদেরকে তাদের নাম বলুন যাদের থেকে এটা আপনারা পেয়েছেন  (আল-রিজাল) নাম দাও,' তারপর [যাদেরকে] আল-সুন্নাহ বলে গণ্য করা হত, তাদের হাদীস গ্রহণ করা হত এবং [যাদেরকে] আহলে বিদা' (উদ্ভাবক) বলে বিবেচিত হত, তাদের হাদীস গ্রহণ করা হত না।

- ইবনে সিরিন (মৃত্যু ৭২৯ খ্রি.)

“গবেষণায় দেখা গেছে যে একজন শিক্ষককে তার হাদীসের তথ্যদাতাদের সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করার প্রথা হিজরীর ১ম শতাব্দীর শেষের দিকে উত্থিত হয়েছিল এবং তারপরে ধীরে ধীরে হিজরি ২য় শতাব্দীতে এটা সাধারণভাবে ছড়িয়ে পড়ে। মক্কায় ২য় শতাব্দীর শুরুর দিকেও ইসনাদ সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা শুরু হয়নি। ইরাকে এটা হয়েছিল তাও পরে।"

- Motzki, Reconstruction, 73

৯. "সুন্না" শব্দের প্রারম্ভিক ব্যবহার ক্লাসিক্যাল ব্যবহার থেকে ভিন্ন

কুরআন ধর্মের জন্য প্রকৃত মানদণ্ড হওয়া উচিত, তাই যে কেউ আশা করবে যে কুরআন এবং হাদীসের শব্দগুলি কীভাবে ব্যবহার করা হয়েছে তার মধ্যে সামঞ্জস্যতা থাকবে, , যেমন হাদিস সংগ্রহের ফলে দেখা যায়, কীভাবে তার তবুও অনেক মূল পরিভাষা তা থেকে আলাদা যা কুরআনে ব্যবহৃত হয়েছে। এর মানে এই পরিভাষাটি কুরআন নাযিলের পরে সৃষ্টি করা হয়েছে। অতএব, যদি আমরা নতুন উপায়ে হাদীসের সংকলনে এই পরিভাষাগুলিকে ব্যবহার করতে দেখি, তাহলে এট হেচ্ছে একটি জোরালো ইঙ্গিত যে বর্ণনাটি নবীজির পরবর্তী সময়ে  তৈরী করা হয়েছে ।

কিছু সহজ উদাহরণ হল: সুন্নাহ ( سُنَّة ), হাদীস ( حَدِيث ), আসার ( أَثَر ), আয়াত ( آيَة ) এবং খলিফা ( خَلِيفَة ) পরিভাষাগুলো। 

উদাহরণস্বরূপ, হাদীসের কাঠামোতে, সুন্নাহ মানে নবী মুহাম্মদের জীবন ব্যবস্থা এবং আইনী নজির। অপরদিকে কোরআনে পরিভাষাটি এটি আল্লাহর ব্যবস্থা বা নজিরগুলির বিষয়ে উল্লেখ করে এবং সাধারণত বিশেষভাবে আল্লাহর ব্যবস্থা বা পদ্ধতিকে বুঝায়, একজন মানুষের নয়।

سُنَّةَ  اللَّهِ  فِي  الَّذِينَ  خَلَوْا  مِن  قَبْلُ  وَلَن  تَجِدَ  لِسُنَّةِ  اللَّهِ  تَبْدِيلًا

[৩৩:৬২] যারা গত হয়ে গেছে তাদের জন্য এটি আল্লাহর চিরন্তন ব্যবস্থা এবং আল্লাহর ব্যবস্থার মধ্যে তোমরা কোন পরিবর্তন দেখতে পাবেনা।

مَّا  كَانَ  عَلَى  النَّبِيِّ  مِنْ  حَرَجٍ  فِيمَا  فَرَضَ  اللَّهُ  لَهُ  سُنَّةَ  اللَّهِ  فِي  الَّذِينَ  خَلَوْا  مِن  قَبْلُ  وَكَانَ  أَمْرُ  اللَّهِ  قَدَرًا  مَّقْدُورًا

[৩৩:৩৮] আল্লাহর দ্বারা বৈধ কোনো কিছু করে নবী কোনো ভুল করছেন না। আদি প্রজন্ম থেকে এটাই আল্লাহর ব্যবস্থা (সুন্নাত)। আল্লাহর আদেশ একটি সুনির্দিষ্ট নির্ধারন।

سُنَّةَ  اللَّهِ  الَّتِي  قَدْ  خَلَتْ  مِن  قَبْلُ  وَلَن  تَجِدَ  لِسُنَّةِ  اللَّهِ  تَبْدِيلًا

[৪৮:২৩] ইতিহাস জুড়ে এটাই আল্লাহ্‌র ব্যবস্থা, এবং তুমি দেখতে পাবে যে আল্লাহ্‌র ব্যবস্থা অপরিবর্তনীয়।

اسْتِكْبَارًا  فِي  الْأَرْضِ  وَمَكْرَ  السَّيِّئِ  وَلَا  يَحِيقُ  الْمَكْرُ  السَّيِّئُ  إِلَّا  بِأَهْلِهِ  فَهَلْ  يَنظُرُونَ  إِلَّا  سُنَّتَ  الْأَوَّلِينَ  فَلَن  تَجِدَ  لِسُنَّتِ  اللَّهِ  تَبْدِيلًا  وَلَن  تَجِدَ  لِسُنَّتِ  اللَّهِ  تَحْوِيلًا

[৩৫:৪৩] তারা পৃথিবীতে অহংকার ও মন্দ ষড়যন্ত্রে অবতীর্ণ হয় এবং মন্দ চক্রান্ত কেবল তাদেরই পশ্চাদপসরণ করে যারা চক্রান্ত করে। তাহলে কি তাদের ভাগ্য ছাড়া আর কিছু আশা করা উচিত যারা অতীতে একই কাজ করেছিল? আপনি দেখতে পাবেন যে আল্লাহর ব্যবস্থা কখনই পরিবর্তনযোগ্য নয়; আপনি দেখতে পাবেন যে আল্লাহর ব্যবস্থা অপরিবর্তনীয়।

فَلَمْ  يَكُ  يَنفَعُهُمْ  إِيمَانُهُمْ  لَمَّا  رَأَوْا  بَأْسَنَا  سُنَّتَ  اللَّهِ  الَّتِي  قَدْ  خَلَتْ  فِي  عِبَادِهِ  وَخَسِرَ  هُنَالِكَ  الْكَافِرُونَ

[৪০:৮৫] অতঃপর তাদের বিশ্বাস তাদের কোন উপকারে আসতে পারেনি, যখন তারা আমাদের শাস্তি দেখেছিল। এই হল আল্লাহর ব্যবস্থা যা তাঁর পূর্ববর্তী সৃষ্টির সাথে হয়েছিল। আর অবিশ্বাসীরা সর্বদাই ধ্বংসপ্রাপ্ত।

হাদীস ( حَدِيث ) শব্দটি কুরআনে তার সাধারণ অর্থে কথা বা বর্ণনা হিসাবে ব্যবহৃত হয়েছে। কিন্তু হাদীস শাস্ত্রে এই শব্দটি বিশেষভাবে নবীর বর্ণনাকে বোঝানো হয়েছে। এইভাবে যে কুরআন নাযিলের সময়, লোকেরা নবী যে হাদীসটি বলেছেন তার সংকলনকে ( حَدِيث ) বুঝাত না, যা এটা নির্দেশ করে যে হাদীসে যে এই পরিভাষাটি এইভাবে ব্যবহার করেছে সম্ভবত সেই সময়ের পরবর্তী নির্মাণ।

আসার ( أَثَر ), হাদিস শাস্ত্রে অর্থ ঐতিহ্য, কুরআনে, সাধারণত পায়ের ছাপ বা চিহ্নের প্রসঙ্গে উল্লেখ করা হয়।

আয়াত ( آيَة ), যা মূলত কুরআনে চিহ্ন বা অলৌকিক ঘটনা উল্লেখ করতে ব্যবহৃত হয়, কুরআনের আয়াতের উল্লেখে ব্যবহৃত হয়।

খলিফা ( خَلِيفَة ) কুরআনে উত্তরাধিকারী বা প্রতিনিধি হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে, কিন্তু হাদিস সাহিত্যে ইমাম ( إِمَامًا ) শব্দের পরিবর্তে বা মুসলিম উম্মাহর শাসক হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে।

১০. হাদিসে দ্রুত সংখ্যাগত বৃদ্ধি

হযরত মুহাম্মদের মৃত্যুর পর প্রথম ১৫০ বছর পর্যন্ত, হাদিস ইচ্ছাকৃতভাবে খোলাখুলিভাবে লেখা হয়নি, বই হিসাবে সংকলন করা তো অনেক পরের বিষয়। পূর্ববর্তী একটি নিবন্ধে, আমরা আলোচনা করেছি যে কীভাবে এই প্রথাটি নবী এবং সাহাবীদের দ্বারা উপেক্ষা করা হয়েছিল কিন্তু পরে ৯ শতকে ধর্মীয় সাহিত্যের অংশ হয়ে ওঠে।

আবূ সাঈদ খুদরী (রাঃ) থেকে বর্ণিত যে, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ আমার সম্পর্কে কিছু লিখবেন না। আর যে আমার সম্পর্কে কুরআন ব্যতীত অন্য কিছু লিখেছে সে যেন তা মুছে দেয়। এবং আমার সম্পর্কে বর্ণনা কর, কারণ এতে কোন ক্ষতি নেই এবং যে আমার প্রতি মিথ্যা আরোপ করেছে; এবং হাম্মাম বলেছেন: আমার মনে হয় তিনিও বলেছেন: "ইচ্ছাকৃতভাবে" - তার আসলে জাহান্নামের আগুনে তার আবাস খুঁজে পাওয়া উচিত।

সহীহ মুসলিম , হাদীস নং৩০০৪

https://sunnah.com/muslim:3004

Additionally, there are many Hadith that state that some of the supposed most cited narrators of Hadith actually only had a very small number of Hadith directly attributed to them.

উপরন্তু, এমন অনেক হাদিস রয়েছে যা বলে যে কিছু অনুমিত সর্বাধিক উদ্ধৃত উক্তি সমূহ উল্লেখ করে, প্রকৃতপক্ষে খুব অল্প সংখ্যক হাদীস সরাসরি তাদের পেছনে কাজ করে। 

উদাহরণ স্বরূপ, ইবনে উমরকে আবু হুরায়রার পর হাদীসের দ্বিতীয় সর্বাধিক প্রসিদ্ধ বর্ণনাকারী হিসাবে বিবেচনা করা হয়, তবুও নিম্নলিখিত হাদীসে আমরা দেখতে পাই যে এটি পরস্পর বিরোধী বলে মনে হয়।

আবদুল্লাহ ইবনে আবু সাফার (রাঃ) থেকে বর্ণিত যে, আমি আশ-শাবী (রাঃ)-কে বলতে শুনেছিঃ আমি এক বছর ইবনু উমর (রাঃ)-এর কাছে বসেছিলাম এবং তাঁকে রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) থেকে কিছু বলতে শুনিনি।

সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং ২৬

https://sunnah.com/ibnmajah:26

“আমি জাবিরকে (অর্থাৎ ইবনে যায়েদ) বলতে শুনিনি “আল্লাহর দূত বলেছেন” তবুও আশেপাশের যুবকরা বলছে “আল্লাহর রসূল বলেছেন” ঘণ্টায় বিশ বার; এবং আমি জানতাম না যে জাবির রাসুল থেকে পনের বা ষোলটির বেশি হাদিস বর্ণনা করেছেন বা তার কাছাকাছি।"

- ফাসাভি, (Fasawi, ed. al-Umari, Marifah, II) পৃ. ১৫

ইতিহাসবিদ প্যাট্রিসিয়া ক্রোন ইবনে আব্বাস সম্পর্কে নিম্নোক্ত কথা বলেছেন, যিনি আরও একটি বড় উৎস ছিলেন হাদিসের একটি বড় সংখ্যা বর্ণনায়।

বুখারি [মৃত্যু ৮৭০ খ্রিষ্টাব্দ] সম্পর্কে বলা হয় যে মোট ৬ লক্ষ রেওয়ায়েতগুলি নবীর থেকে পরম্পরায় পেয়েছিলেন; তিনি প্রায় ৭ হাজারটি (পুনরাবৃত্তি সহ) সংরক্ষণ করেছিলেন, বা অন্য কথায় প্রায় ৫ লক্ষ ৯৩ হাজার টি রেওয়ায়েতকে অপ্রমাণিক বলে বরখাস্ত করেছিলেন। যদি ইবনে হাম্বল [মৃত্যু ৮৫৫ খ্রিষ্টাব্দ] অনুরূপ সংখ্যক রেওয়ায়েত পরীক্ষা করেন, তবে তিনি অবশ্যই প্রায় ৫ লক্ষ ৭০ হাজার টি প্রত্যাখ্যান করেছেন, তার সংগ্রহে প্রায় ৩০ হাজার (পুনরাবৃত্তি সহ) হাদীস রয়েছে। ইবনে হাম্বলের রেওয়ায়েতের মধ্যে ১,৭১০টি (পুনরাবৃত্তি সহ) সাহাবী ইবনে আব্বাস [মৃত্যু ৬৮৭ খ্রিষ্টাব্দ]  এর বর্ণনায় উল্লেখ করা হয়েছে। অথচ পঞ্চাশ বছরেরও কম আগে একজন পণ্ডিত অনুমান করেছিলেন যে ইবনে আব্বাস নবীর কাছ থেকে মাত্র নয়টি রেওয়ায়েত শুনেছেন, অন্য একজন ভেবেছিলেন যে সঠিক সংখ্যা দশটি হতে পারে। যদি ইবনে আব্বাস ৮০০ সালের দিকে নবীর কাছ থেকে দশটি রেওয়ায়েত শুনে থাকেন, কিন্তু ৮৫০ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে এক হাজারেরও বেশি শুনে থাকেন, তাহলে তিনি ৭০০ বা ৬৩২ সালে কতটি শুনেছিলেন? এমনকি যদি আমরা মেনেও নিই যে ইবনে আব্বাসের দশটি রেওয়ায়েতই প্রামাণিক, তবুও আমরা কিভাবে ১,৭১০ এর পুলের মধ্যে তাদের চিহ্নিত করব?

- প্যাট্রিসিয়া ক্রোন (Patricia Crone – Crone, P., Roman, Provincial, and Islamic Law) রোমান, প্রাদেশিক এবং ইসলামিক আইন, পৃ.৩৩

এই প্রবণতাটি দেখায় যে সময় যত গড়াচ্ছে তত বেশি হাদিস তৈরি হচ্ছে। যদি হাদিসটি বৈধ পূর্বের উত্স থেকে আসে, আমরা আশা করব যে এটি বিপরীত হবে, আগের তারিখে বেশি হাদিস এবং পরবর্তী তারিখে কম হাদিস উদ্ধৃত করা হবে।

১১. প্রাথমিক সূত্রে হাদীসের অনুপস্থিতি

“প্রাথমিক ইসলামিক পত্র এবং এই জাতীয় অন্যান্য রচনাগুলিতে হাদিস ব্যাপকভাবে বা এমনকি সম্পূর্ণভাবে অনুপস্থিত, যেগুলি ৮ম শতাব্দীর শুরু থেকে মাঝামাঝি পর্যন্ত (তাদের প্রাচীন বা অন্যথায় নতুন বিষয়বস্তুর ভিত্তিতে); এমনকি হাদিস যখন এই ধরনের রচনায় উদ্ধৃত করা শুরু করে (খ্রিস্টীয় ৮ম শতাব্দীর মাঝামাঝি থেকে), বিশেষ করে ভবিষ্যদ্বাণীমূলক হাদিসগুলি অনেকাংশে বা এমনকি সম্পূর্ণ অনুপস্থিত।"

Patricia Crone & Martin Hinds

১২. হাদিসের পুনঃপ্রবর্তন বা উত্থাপন

হাদীস সংকলন কর্ম তাবেয়ী, সাহাবা এবং নবীর কাছে বর্ণিত একই হাদীস দ্বারা ধাঁধাঁযুক্ত। তাই আমরা দেখতে পাই যে একটি হাদীস পরবর্তী প্রজন্মের মধ্যে একটি সাধারণ বর্ণনা হিসাবে ধীরে ধীরে নবীর সাথে বর্ণনাকে যুক্ত করার জন্য পুনর্নির্মাণ করা হচ্ছে যতক্ষণ না এটি শেষ পর্যন্ত একটি ভবিষ্যদ্বাণীমূলক হাদীস হিসাবে চিহ্নিত হয়। অত্র সাক্ষাৎকারে যেমন বলা হয়েছে, "দ্বিতীয় এবং তৃতীয় হিজরী শতাব্দীতে প্রগতিশীল পশ্চাদপসরণ করার সাধারণ প্রক্রিয়ার সাথে এই সবই সামঞ্জস্যপূর্ণ, কারণ ধর্মীয় কর্তৃত্ব ক্রমবর্ধমানভাবে পরবর্তী থেকে আগের পরিসংখ্যানে স্থানান্তরিত হয়েছে।" এটা সামঞ্জস্যপূর্ণ যে, হাদীসের সমালোচনা ও যাচাই-বাছাই বাড়ার সাথে সাথে হাদীসের প্রচারকারীরা বর্ণনাটিকে নবীর সাথে যুক্ত করার জন্য ইসনাদের ধারা পূরণ করতে শুরু করে।

কিছু ব্যক্তি দাবি করেন যে প্রদত্ত বর্ণনার পূর্ববর্তী প্রচারকারীরা প্রাথমিকভাবে ভবিষ্যদ্বাণীমূলক সংস্করণ এবং নজির উল্লেখ করার প্রয়োজন অনুভব করেননি। কিন্তু এটি গিলে ফেলা একটি কঠিন বড়ি কারণ এই ধারণাটি গ্রহণ করা কঠিন যে হাজার হাজার- প্রতিবেদনগুলি বিনা কারণে রেকর্ড করা হয়েছিল, উল্লেখ করা হয়নি, তবে একটি সমান্তরাল গোপন ক্ষেত্রে ভবিষ্যদ্বাণীমূলক হাদিসগুলিও ছিল যা একটি পর্যন্ত দায়ী করা হয়নি। পরবর্তী তারিখ? যেন তারা কোথাও একটি বেসমেন্টে লুকিয়ে ছিল এবং পরে আবিষ্কার করে, "ওহ, এই হাদিসটি আমরা এমন একজন ব্যক্তির কাছ থেকে পাচ্ছি, যে নবীর পর প্রজন্ম ধরে বেঁচে আছে আসলে পুরো সময় নবীর কাছ থেকে।" শুধু তাই নয়, এটি ঠিক তখনই আবিষ্কৃত হয় যখন হাদিস সমালোচনা আরও প্রবল হয়ে ওঠে। এই হাদিসগুলো আগের সূত্রে বর্ণনা করা হচ্ছে না, সেগুলো আচার-অনুষ্ঠানে ব্যবহার করা হচ্ছে না, তারপর হঠাৎ করেই সেগুলো ব্যাপকভাবে প্রকাশ পেতে শুরু করে। সংক্ষেপে, এটির কোন অর্থ হয় না।

এটা এমন নয় যে তারা ভবিষ্যদ্বাণীপূর্ণ হাদীসে প্রবেশ করতে পারত না, যদি তারা থাকত, কারণ যারা এই হাদিসটি সংকলনের জন্য বর্ণনা করেছেন তারা একই লোক ছিলেন। তারা কি ভুলে গিয়েছিল যখন তারা প্রথম হাদীস বর্ণনা করেছিল? এটি আরও দেখায় যে ঐতিহাসিকভাবে এটি নবীর উদ্ধিত সম্পর্কে ছিল না, কারণ এটি যদি ততটা যোগ্যতা রাখে তবে তারা তাকে শুরু থেকেই  করত। এটি উল্লিখিত পূর্ববর্তী বেশ কয়েকটি পয়েন্টকে শক্তিশালী করে যে ইতিহাসের পরবর্তী তারিখ পর্যন্ত ব্যক্তিরা নবীর কথার উপর বেশি গুরুত্ব দিতে শুরু করেনি। এবং এই নতুন উদ্ভাবনকে সামঞ্জস্য করার জন্য হাদিসগুলিকে আগের নিয়মে আঁকড়ে ধরে।

১৩. আসল ইতিহাসের সাথে অসামঞ্জস্যপূর্ণ বর্ণনার অদ্ভুত ধরন

হাদিসের সংগ্রহের সময় অদ্ভুত কিছু বিশেষত্ব লক্ষ্য করা যায়, তা হল এর মধ্যে কিছু রেওয়ায়েতের অস্পষ্ট প্রকৃতি। যেমন :

মায়মুনা (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ নবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) কোন প্রানীর এক টুকরো মাংস কাঁধের অংশ থেকে খেয়েছেন এবং অযু না করেই সালাত আদায় করেছেন।

সহীহ আল-বুখারী ২১০

https://sunnah.com/bukhari:210

বিচ্ছিন্নভাবে, একজনকে যদি জিজ্ঞাসা করা হয়, যে রাবীদের পরম্পরায় এমন কে ছিল যাদের এই বিবিধ তথ্যটি ধরে রাখার জন্য সুবুদ্ধি ছিল। যে নবীর একজন সঙ্গী এবং ইসনাদ চেইনের অন্যান্য সদস্যরা সকলেই বাধ্য হয়ে অনুভব করেছিলেন যে এটি বজায় রাখা এবং নিশ্চিত করার জন্য এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ছিল, যে ভবিষ্যত প্রজন্ম সচেতন ছিল যে নবী নামাজের আগে অযু না করেই একটি কাঁধের মাংসের মাটন খেয়েছিলেন।

যদি চিন্তা করি যে, বুখারী সম্ভাব্যভাবে শত শত মাইল ভ্রমণ করেছেন এমন ব্যক্তির সাথে দেখা করার জন্য যিনি নবীর কাজ সম্পর্কিত এই একক বাক্যটিকে ধরে রাখার সম্মান পেয়েছিলেন। লক্ষ্য করুন, যে এটির কোন প্রসঙ্গ নেই, অন্য কোন তথ্য নেই কিন্তু শুধুমাত্র এই একটি বিবৃতি। এটা খুবই অদ্ভুত। অন্তত এটা কি বলা যায়, যদি কেউ বুঝতে পারে যে, বুখারী সংকলনের সময়, এমন একটি প্রশ্ন যা বিতর্কিত হয়েছিল তা হল গোশত খেলে অযু ভেঙ্গে যায় কি না? তাহলে এই বিতর্কে এই অস্পষ্ট তথ্যটি কেন উপকারী হবে তা স্পষ্ট হয়ে যায়। শত শত বছর পরে প্রণীত ক্লান্তিকর আইনি আলোচনা ছাড়া তথ্যের এই খণ্ডটি ধরে রাখার জন্য আর কী প্রেরণা রয়েছে।

এবং এরকম শুধু একটি একক দৃষ্টান্ত নয়, বিচ্ছিন্নভাবে অনেক হাদিস কেন সেগুলিকে ধরে রাখা হবে, প্রচার করা হবে এবং আরোপিত হবে সে সম্পর্কে একেবারেই কোন অর্থবোধ করে না, তবে যখন বোঝা যায় যে এই এলোমেলো বিষয়গুলি এই সাহিত্য সংকলনের সময় মুসলমানদের নিকট ছিল তর্ক ও বিতর্কের বিষয়। অন্যান্য আইনগত বিষয়, যেখানে খণ্ডিত হাদিস রয়েছে যা বিচ্ছিন্নভাবে অর্থপূর্ণ নয়, সেগুলি হল বিবাহ, শিষ্টাচার, খাদ্যাভ্যাসের নিষেধাজ্ঞা এবং অন্যান্য অসংখ্য বিষয়।

এইটা সত্য যে অনেক হাদিস বিচ্ছিন্নভাবে কোন অর্থ বহন করে না, কিন্তু শুধুমাত্র পরবর্তী বিতর্কে বা আইনশাস্ত্রের বিষয়গুলিতে তা অর্থবহ হয়, তা এমন নয় যে যদি উত্সটি প্রামাণিক হয় এবং পরবর্তী তারিখে বানোয়াট না হয় যখন আইনী বিতর্কের সাথে পুরোপুরি সামঞ্জস্য করা হয়। আইনি আলোচনার অনুপ্রেরণা ব্যতীত, এমন কোন যৌক্তিক কারণ নেই যে কেউ এই ধরনের অস্পষ্ট বিবরণগুলিতে বিশেষ মনোযোগ দেবে, অন্যরা এই একটি সত্য সম্পর্কে সচেতন ছিল তা নিশ্চিত করার তাগিদ অনুভব করতে পারে। 

মজার বিষয় হল এটি এখানেই শেষ হয় না কারণ, প্রতিটি হাদিসের জন্য যেগুলি বিতর্কের এক পক্ষকে যুক্তি দেয়, এমন হাদিসও রয়েছে যা বিপরীত বলে। সুতরাং এই অস্পষ্ট বিষয়গুলিতে, শুধুমাত্র একটি হাদীস নয়, বিরোধী হাদীসের অংশগুলিও রয়েছে। এটির একটি ভাল উদাহরণ হল নিজেকে উপশম করার জন্য উপযুক্ত শিষ্টাচার সম্পর্কে, যাতে একজনের বসতে হবে বা দাঁড়াতে হবে, বা কোন একজনকে কিবলার দিকে মুখ করার অনুমতি দেওয়া হবে কি না।

হাদিস সংকলনের ক্ষেত্রে আরেকটি অদ্ভুততা যা খুবই সন্দেহজনক বলে মনে হয় তা হল যে "প্রমাণিত" (সহীহ) হিসাবে চিহ্নিত একটি অসম পরিমাণ হাদিস প্রায়শই স্বতন্ত্র বর্ণনাকারীদের উপর নির্ভর করে যারা দীর্ঘ জীবনকাল পেয়েছিলেন, বহু শতবর্ষী (মুআম্মারুন) । এটি যুক্তি দেওয়া যেতে পারে যে যেহেতু এই ব্যক্তিরা দীর্ঘকাল বেঁচে ছিলেন, তাই এটি কেবল বোঝায় যে তারা আরও বেশি হাদিস বর্ণনা করবে, তবে আরেকটি কারণ হল যে আরও যারা দীর্ঘকাল বেঁচে ছিলেন তারাও সনদ পরম্পরার একটি ছোট চেইন (ইসনাদ) তৈরি করবে এবং তাই তাদের বিভ্রম দেওয়া হবে। আরো নির্ভরযোগ্য হওয়ার জন্য।

এই অনুপ্রেরণার প্রমাণ হল যে এই দীর্ঘজীবী বর্ণনাকারীরা কুফায় উদ্ভূত হাদীস থেকে আরও বেশি ফলপ্রসূ বলে মনে হয়। এর কারণ এই যে, এই অঞ্চলগুলিতে, নবীর সাহাবীরা যারা সেখানে বসবাস করেছিলেন তারা নবীর পরে তুলনামূলকভাবে খুব তাড়াতাড়ি মারা গিয়েছিলেন, যেমন, ইবনে মাসউদ, ইব্রাহিম আল-নাখাইল, আলী এবং তাঁর পরিবার। তাই তাদের ইসনাদের ছোট করার চতুর উপায় খুঁজে বের করতে হবে। অন্যথায় তাদের হাদীসটি সহীহ বলে গণ্য হবে না। সুতরাং এটি প্রকৃত ঐতিহাসিক ধারাবাহিকতার একটি পণ্য হিসাবে কোন অর্থবোধ করে না যেন কুফাতে আরও দীর্ঘজীবী (মুআম্মারুন) ছিল তবে নির্দিষ্ট কুফানের প্রতিফলন হিসাবে নিখুঁতভাবে বোঝায় যা সহজবোধ্য এবং বিশেষত ছোট দ্বীপগুলির সৃষ্টির জন্য ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। .

ইতিহাসবিদ জি.এইচ.এ. জুইনবোল এই বিষয়ে একটি নিবন্ধ লিখেছেন "মুআম্মারুনের ভূমিকা" শিরোনামে, যা অত্যন্ত দীর্ঘজীবী ব্যক্তিদের নিয়ে আলোচনা করে যাদেরকে হাদিস বর্ণকারী রাবীদের ধারাবাহিকতার ফাঁক বন্ধ করার জন্য ইসনাদ চেইনে ঢোকানো হয়। সংক্ষেপে, আমরা কি বিশ্বাস করব যে হাদিস বর্ণনা ১০০+ বছর ধরে বেঁচে থাকা অনেক লোকের সাথে মিলে গেছে? অথবা এটা কি সম্ভবত যে ব্যক্তিরা তাদের সমর্থনকারী হাদীসের আরও বৈধতা প্রদান করতে চেয়েছিলেন তারা এই ব্যক্তিদের তাদের ইসনাদ চেইনে ঢোকানোর ফাঁক বন্ধ করতে এবং তাদের ইসনাদকে ছোট করার জন্য ব্যবহার করা হয়েছিল?

১৪. হাদিসগুলি আগের সূত্রের বিপরীতে

অনেক হাদিস পূর্ববর্তী ইসলামিক ও অ-ইসলামী সাহিত্যের উৎস এবং এমনকি কিছু প্রোটো-ইসলামিক এবং প্রাক-ইসলামিক প্রত্নতাত্ত্বিক সূত্রের বিরোধিতা করে। এর সবচেয়ে সুস্পষ্ট ইঙ্গিত হল কুরআনের সাথে হাদীসের মধ্যে প্রবল দ্বন্দ্ব। কুরআন দেখায় যে নবী যে সমস্ত যুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন তা ছিল প্রতিরক্ষামূলক ব্যবস্থা, যেহেতু কুরআন অ-আগ্রাসন নীতিকে প্রচার করে। অথচ হাদিস শাস্ত্র নবী এবং মুমিনদেরকে অসংখ্য আগ্রাসন চালাচ্ছে বলে চিত্রিত করেছে।

আরেকটি উদাহরণ যা অনৈসলামিক বিবরণের সাথে সাংঘর্ষিক তা হল নবীর সময়ে আরবদের ধর্মের চিত্রায়ন। ঐতিহাসিক বিবরণ এবং প্রত্নতাত্ত্বিক রেকর্ডগুলি দেখায় যে, বেশিরভাগ অংশে, তারা বিশ্বাসে একেশ্বরবাদী ছিল এবং যে হাদিস শাস্ত্রে বর্ণিত হয়েছে জ্বলন্ত মূর্তি পূজারী, তেমন নয়। ঐতিহাসিক বিবরণটি কুরআনের বর্ণনার সাথেও সামঞ্জস্যপূর্ণ। আমরা এমন অসংখ্য বর্ণনা দেখতে পাই যে, সাধারণ স্তুর থেকে, তৎকালীন আরবরা ঈশ্বরে বিশ্বাস করত। তারা নিজেদের একেশ্বরবাদী হিসাবে দেখেছিল, কিন্তু কুরআন বলেছে যে তাদের আসল বিশ্বাস হল মূর্তিপূজারীদের বিশ্বাস যারা তারা তাদের মুখে যা বলেছিল তা সত্ত্বেও ঈশ্বরকে বাদ দিয়ে অন্যান্য সত্তাকে ক্ষমতা দিয়েছিল।

وَلَئِن  سَأَلْتَهُم  مَّنْ  خَلَقَ  السَّمَاوَاتِ  وَالْأَرْضَ  وَسَخَّرَ  الشَّمْسَ  وَالْقَمَرَ  لَيَقُولُنَّ  اللَّهُ  فَأَنَّىٰ  يُؤْفَكُونَ

[২৯:৬১] আপনি যদি তাদেরকে জিজ্ঞেস করেন, কে নভোমন্ডল ও পৃথিবী সৃষ্টি করেছেন এবং সূর্য ও চন্দ্রকে নিয়োজিত করেছেন, তবে তারা বলবে, আল্লাহ। তাহলে কেন তারা বিচ্যুত হলো?

وَلَئِن  سَأَلْتَهُم  مَّن  نَّزَّلَ  مِنَ  السَّمَاءِ  مَاءً  فَأَحْيَا  بِهِ  الْأَرْضَ  مِن  بَعْدِ  مَوْتِهَا  لَيَقُولُنَّ  اللَّهُ  قُلِ  الْحَمْدُ  لِلَّهِ  بَلْ  أَكْثَرُهُمْ  لَا  يَعْقِلُونَ

[২৯:৬৩] আপনি যদি তাদেরকে জিজ্ঞেস করেন, মৃত ভূমিকে পুনরুজ্জীবিত করার জন্য কে আকাশ থেকে পানি বর্ষণ করেন, তবে তারা বলবে, আল্লাহ। বলুন, " সকল প্রশংসা আল্লাহর।" তাদের অধিকাংশই বোঝে না।

وَلَئِن  سَأَلْتَهُم  مَّنْ  خَلَقَ  السَّمَاوَاتِ  وَالْأَرْضَ  لَيَقُولُنَّ  اللَّهُ  قُلِ  الْحَمْدُ  لِلَّهِ  بَلْ  أَكْثَرُهُمْ  لَا  يَعْلَمُونَ

[৩১:২৫] আপনি যদি তাদেরকে জিজ্ঞেস করেন, কে নভোমন্ডল ও ভূমন্ডল সৃষ্টি করেছেন, তবে তারা বলবে, আল্লাহ। বল, "সকল প্রশংসা আল্লাহর।" অথচ, তাদের অধিকাংশই জানে না।

উপরন্তু, হযরত মুহাম্মাদ সম্পর্কে বিবরণ অনেক ধর্মীয় সাহিত্যে পাওয়া যায় না, কুরআনে তার চারটি উল্লেখ ছাড়া। আবদ আল-মালিকের রাজত্বকাল পর্যন্ত (মৃত্যু ৭০৫ খ্রিষ্টাব্দ) ডোম অফ দ্য রকের শিলালিপিতে, যেটি তিনি নির্মাণ করেছিলেন। দ্বিতীয় ফিতনার সময় (৬৯১-৬৯২খ্রিষ্টাব্দ) জেরুজালেম। এতে বুঝা যায়, যে নবীর মৃত্যুর পরে প্রাথমিক ইতিহাসের বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, তাঁর বক্তব্য এবং কাজগুলি ধর্মের প্রধান বিষয় ছিল না বা ধর্মীয় বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য ব্যবহার করা হয়নি।

১৫. বাচনিক তথা বর্ণনা স্থানান্তরে কম নির্ভুলতা

প্রায়শই হাদিসের সমর্থকরা অতীতে মানুষের উচ্চতর স্মৃতি নিয়ে গর্ব করেন। তারা দাবি করে যে নবীর সময় এবং পরবর্তী প্রজন্মের লোকেরা যা শুনেছিল তা মুখস্থ করার জন্য তাদের অতিমানবীয় ক্ষমতার কারণে কিছু লেখার প্রয়োজন ছিল না। ঐতিহাসিকভাবে এই ধরনের দাবি মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে। ঐতিহ্যগত সমাজে মৌখিক বর্ণনা অত্যন্ত নির্ভরযোগ্য-  এই ধরণের ঐতিহ্যগত ধারণাকে মৌখিক অধ্যয়ন বিজ্ঞান  অস্বীকার করছে। 

বিভিন্ন পরীক্ষায় দেখা গেছে, যে মৌখিক সংস্কৃতি চালু থাকে, যে কারণে তাদের আরও ভালভাবে স্মরণ করতে পারে, তা হ'ল তাদের একটি লিখিত নিয়ন্ত্রণ নেই, যার ভিত্তিতে তাদের স্মৃতিচারণ করা যায়। স্মৃতি বিষয়ক গবেষনা সমূহ প্রমাণ করে যে, যে একজন গড় ব্যক্তির স্মৃতি সত্যিই কতটা দুর্বল এবং কীভাবে স্মৃতি অতীতে যা ঘটেছিল তা "রেকর্ড" করে না, বরং এটি সেই সময় বা স্মরণকারী ব্যক্তির বোধগম্যতার উপর ভিত্তি করে একটি ঘটনা তৈরি করে এবং পুনর্গঠন করে। অন্য কথায়, মেমরি অর্থ-তৈরী এবং অর্থ-নির্মাণ করার ক্ষেত্রে অত্যন্ত নমনীয়। এই কারণেই প্রত্যক্ষদর্শীর সাক্ষ্য অধ্যয়নের পরে প্রমাণিত হয়েছে যে এটি অত্যন্ত অবিশ্বস্ত এবং নষ্ট হয়ে যাওয়ার জন্য সংবেদনশীল।

ঐতিহাসিকগণ দেখিয়েছেন যে তথাকথিত গণ-বর্ণিত, মুতাওয়াতির (متواتر) হাদীসও নির্ভরযোগ্য নয়। যীশুর পুনরুত্থান সম্পর্কে দাবি করার সময় মুসলমানরা স্বজ্ঞাতভাবে এটি বুঝতে পারে যে খ্রিস্টধর্মের ক্ষেত্রে এবং  কিন্তু মনে করে যে প্রথম দিকের মুসলমানরা কিছুটা আলাদা ছিল। কিছু লোক এটিকে কুরআনের মুখস্থ করার দিকে নির্দেশ করে। কিন্তু এক্ষেত্রে এটি  সঠিক তুলনা নয় কারণ মৌখিক তেলাওয়াতের সাথে সাথে সর্বদা লিখিত কুরআন ছিল যা মৌখিক তেলাওয়াতের নিয়ন্ত্রণ হিসাবে কাজ করেছিল। অতএব, মৌখিক স্মৃতি কাজ করে যখন বৃত্তি, লেখা, প্রতিষ্ঠান এবং চেক এবং ব্যালেন্সের মাধ্যমে পদ্ধতিগত নিয়ন্ত্রণ থাকে। হাদিস সংকলনের ক্ষেত্রে এটি ছিল না।

এর প্রকৃতির দ্বারা, মৌখিক বর্ণনা সর্বদা তরলতার একটি স্তর বজায় রাখে যেখানে প্রতিশব্দ ব্যবহার করা হয় এবং জিনিসগুলি বাদ দেওয়া বা পরিবর্তন করা হয়। এর একটি উদাহরণ হল ৫,৭৩৪টি হাদিস যা আবু হুরায়রা নবীর কাছ থেকে বর্ণনা করেছেন, যদিও তিনি নবীর সীমিত ক্ষমতার মধ্যে মাত্র কয়েক বছরের বেশি সময় ছিল না। কিছু ব্যক্তি এই যুক্তির পিছনে কিছু ব্যাখ্য দেয় এবং দাবি করে যে আবু হুরায়রা অন্যান্য সাহাবীদের বক্তব্য শুনেছেন তার প্রতিধ্বনি দিয়েছেন। যদি তাই হয়, তাহলে যেহেতু তিনি উল্লেখ করেননি যে তিনি সরাসরি নবীর কাছ থেকে শুনেননি, তাই তিনি প্রথমে মিথ্যা সাক্ষ্য দিচ্ছেন। দ্বিতীয়ত, এটি দেখায় যে হাদিসে ইসনাদের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য অনুপস্থিত।

এর আরেকটি উদাহরণ মুমিনের ঈমানের সাক্ষ্য, তাশাহহুদ (تَشَهُّد) সম্পর্কিত বিভিন্ন হাদীসে দেখা যায়। হাদিসটি উল্লেখ করা সত্ত্বেও যে এটি নবীর দ্বারা সাহাবীদের শেখানো হয়েছিল যেন এটি কুরআনের আয়াত ছিল, এই ঘোষণাটি বর্ণনা করে- হাদীসের বিভিন্ন বর্ণনা রয়েছে, প্রতিটি অন্যটির থেকে আলাদা।

মৌখিক সংক্রমণের এই তরলতাও বিশেষভাবে সমস্যাযুক্ত হয়ে ওঠে কারণ ঐতিহ্যবাদীরা হাদিসকে ঐশী প্রত্যাদেশ, ওয়াহি ( وَحْي ) বলে মনে করেন এবং তাই ধর্মীয় আদেশের একটি উৎস হিসাবে গণ্য করে। আইনের ভিত্তি যেমন মজবুত হওয়া উচিত তার এমন আইনের প্রয়োজনীয়তার সাথে এটি বিরোধপূর্ণ। কারণ আইন সুনির্দিষ্ট হতে হবে, যেখানে নির্দিষ্ট শব্দ, বিরাম চিহ্ন এবং ব্যাকরণ বিশ্লেষণ করা যেতে পারে। কিন্তু এরকম তরল একটি বর্ণনা আইন সহজভাবে, সর্বোত্তম একটি নির্দেশিকা এবং একটি ডিক্রি হিসাবে বিবেচিত হতে পারে না। এটি আইন হিসাবে ব্যবহার করা যাবে না কারণ সঠিক শব্দের কোন নিশ্চিততা নেই- যা বলা হয়েছিল, সঠিক প্রেক্ষাপট উল্লেখ না করার কারণে এটি যেদিকে পরিচালিত হয়েছিল।

তবে আরেকটি প্রধান কারণ রয়েছে যা মৌখিক ঐতিহ্যের নির্ভরযোগ্যতাকে প্রভাবিত করতে পারে- এটা হচ্ছে, আমাদের বর্তমান পরিবেশের দ্বারা প্রভাবিত হয় আমাদের স্মৃতির বেশিরভাগই। নবীর মৃত্যুর পর, মুসলমানরা দ্রুত পরিবর্তিত পরিবেশ, ব্যাপক অভিবাসন, গৃহযুদ্ধ, দুর্ভিক্ষ, মারামারি এবং অবশেষে বিপুল সম্পদের অভিজ্ঞতা লাভ করে। এই সমস্ত কারণগুলি স্মৃতিতে একটি বড় প্রভাব ফেলে এবং ব্যক্তিরা স্মরণ করে কীভাবে ঘটনাগুলি ঘটেছিল বা সুদূর অতীতে একটি সময়ে বিশেষভাবে কী বলা হয়েছিল। এর কারণ হল জনগণের চাহিদা এবং আগ্রহগুলি দ্রুত পরিবর্তিত হচ্ছিল, যা তারা অতীতের ঘটনাগুলিকে কীভাবে উপলব্ধি করেছিল তাকে প্রভাবিত করেছিল। ইতিহাসবিদরা ভাল করেই জানেন যে যখন মৌখিক সমাজগুলি এত দ্রুত পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যায়, তখন এটি তাদের ইতিহাস স্মরণে মারাত্মক প্রভাব ফেলে এবং এটা ভাবা নির্বুদ্ধিতা হবে যে মুসলিম সমাজ একই রকমের পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে গিয়েও অন্যান্য সমাজের চেয়ে আলাদা ছিল। 

১৬. চরম বৈচিত্র্য, দ্রুত রূপান্তর

প্রায়শই লোকেরা হাদিসকে টেলিফোনের একটি বিস্তৃত খেলা হিসাবে সমতুল্য করে, এবং অনেক ঐতিহ্যবাদীরা এই তুলনা করাতে আপত্তি করে। কিন্তু ডাঃ লিটল, এখানে বলেছেন যে বাস্তবে এই ধরনের তুলনা খুব বেশি ভুল নয়। কারণ হাদিসে একই ঘটনার চরম ভিন্নতা রয়েছে। উদাহরণ স্বরূপ, নবীর বিষয়ে মন্দ খ্যাতি হাদিসটি, তিনি শুধুমাত্র তার স্ত্রীদের খুশি করার জন্য নিজের জন্য কিছু নিষিদ্ধ করেছে, যেমনটি সূরা ৬৬ এর প্রথম আয়াতে বলা হয়েছে: নিষেধাজ্ঞা, আল-তাহরীম ( الـتحريم)। হাদিস সাহিত্য অনুসারে, এটি নবী মধু নিষিদ্ধ করে নিয়েছেন তার জন্য অথবা বা তার স্ত্রীদের একজনের সাথে যৌন মিলন নিষিদ্ধ করে নিয়েছেন- এই বিষয়ের সাথে সংশ্লিষ্ট।

এছাড়াও, মক্কা বিজয়ের পর ১০ হিজরিতে বিদায়ী তীর্থযাত্রা, হুজ্জাতু আল-বিদা' (حِجَّة ٱلْوَدَاع) নামে পরিচিত, সেখানের একটি খুতবা আমাদের কাছে দেওয়া হয়েছে। শুধুমাত্র এর বিভিন্ন বর্ণনাই পরিবর্তিত হয় নি,  একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিবৃতি সম্পূর্ণভাবে বিতর্কের জন্য তৈরি করেছে। এসব সংকলনের উপর ভিত্তি করে যে কেউ নবীর তিনটি সম্ভাব্য বিবৃতির মধ্যে একটি গ্রহণ করতে পারে:

* "আমি তোমাদের জন্য যা রেখে গেলাম, তা যদি তোমরা আঁকড়ে ধর, তোমরা কখনো বিপথগামী হবে না, তা হচ্ছে আল্লাহর কিতাব।" 

-সহীহ মুসলিম, হাদীন নং  ১২১৮

কিতাব আল-বায়ান ওয়া-আল-তাবিয়ীনে আল-জাহিজ

ইমাম আহমদের মুসনাদ (হাদিস নং. ১৯৭৭৪)

মিশকাত আল-মাসাবীহ, হাদীন নং  ২৫৫৫

সুনান আবি দাউদ, হাদীন নং  ১৯০৫

* "আমি তোমাদের জন্য রেখে গেলাম একটি বিষয়, যদি তোমরা তা আঁকড়ে ধর, তোমরা কখনো বিপথগামী হবে না, তা হচ্ছে আল্লাহর কিতাব এবং আমার পরিবার, ঘরের লোক।"

-জামিআত-তিরমিযী, হাদীন নং ৩৭৮৬

* "আমি তোমাদের জন্য রেখে গেলাম যা তোমরা যদি আঁকড়ে ধরে থাকো, তোমরা কখনো পথভ্রষ্ট হবে না, তা হচ্ছে আল্লাহর কিতাব এবং আমার সুন্নাহ।"

-ইবনে ইসহাক, যেমনটি ইবনে হিশামের সিরাহ আন-নবাবিয়াতে উদ্ধৃত হয়েছে

* “আমি তোমাদেরকে নির্দেশ দিচ্ছি আল্লাহকে ভয় করতে এবং আবিসিনিয়ান (ইথিওপিয়ান) ক্রীতদাস হলেও (তোমাদের নেতাদের) কথা শোনা ও আনুগত্য করার। তোমাদের মধ্যে যারা আমার পরে বেঁচে থাকবে তারা বড় মতবিরোধ দেখতে পাবে। তখন তোমরা অবশ্যই আমার সুন্নাহ এবং সঠিক পথপ্রদর্শক খলিফাদের অনুসরণ করবে।”

-জামিআত-তিরমিযী, হাদীন নং  ২৬৭৬

 সুনানে ইবনে মাজাহ ,হাদীন নং  ৪২

 সুনান আবি দাউদ, হাদীন নং  ৪৬০৭

 রিয়াদ আস-সালিহীন, হাদীন নং ১৫৭

এটি বহিরাগতদের কাছে তুচ্ছ মনে হতে পারে, কিন্তু ধর্মের যে কোনো অনুগামীর কাছে, যে বিবৃতিটি নবী আসলে বলেছেন, যদি থাকে, ধর্মের সমগ্র বিশ্বাস ও বোঝায় এর বড় প্রভাব রয়েছে। "আমার সুন্নাহ" বা "সঠিক নির্দেশিত খলিফাদের" দাবিটি (এটি অদ্যকার আলোচনার ৯ নং পয়েন্টকেও স্পর্শ করে) যেখানে কুরআনে এই শব্দটি (সুন্নাহ) কখনই নবীর ক্রিয়াকলাপ বোঝাতে ব্যবহার করা হয়নি, তাই এটা একটি বড় ভুল হবে, যে এটি মনে করা যে, তিনি আসলে এটা বলেছেন। এটা যথেষ্ট হাস্যকরও। আবু দাউদ (হাদীস নং ৪৬০৭) থেকে বর্ণিত এবং অন্যান্য বর্ণনায় সঠিকপথে পরিচালিত খলিফাদের উল্লেখ করা হয়েছে, হাদিসটি বলছে- যে নবী বলেছেন:

"আর হাদীসের বিষয়গুলো এড়িয়ে চল, কেননা প্রতিটি হাদীসই বিদআত এবং প্রতিটি বিদআতই গোমরাহী।"

১৭. কৃত্রিম সাহিত্য কাঠামো

নবী সম্পর্কে অনেক হাদিস সাহিত্যে প্রচলিত থিম বা সূত্র অনুসরণ করে। এই প্রত্নতাত্বিক বিবরণ এবং আখ্যানগুলি ইতিহাসের চেয়ে গল্প বলার ধরন অনুসরন করে। মূসা (আঃ) এবং আদম (আঃ) এর মধ্যে বিতর্ক সম্পর্কিত হাদিস তাদের সম্প্রদায়ের পথভ্রষ্ট হওয়ার জন্য একে অপরকে দোষারোপ করে। মূসার জামাকাপড় পাথরে চুরি হওয়া বা মৃত্যুর ফেরেশতার সাথে তার যুদ্ধ বা শয়তানের সাথে নবীর কুস্তি হওয়া সম্পর্কে হাদীস। অথবা নবীর অলৌকিক ঘটনা সম্পর্কে অসংখ্য হাদিস যেমন, জনসাধারণের জন্য সীমাহীন পরিমাণে খাদ্য ও পানির ব্যবস্থা হওয়া, অথবা এই বর্ণনা যে, আল্লাহ তাকে খাওয়ানোর কারণে তার খাবার বা পানীয়ের প্রয়োজন ছিল না, অথবা তিনি তার মাথার পিছন দিকে দেখতে পান।

১৮. জনপ্রিয় গল্প বলার পণ্য

এগুলো যদি গল্প হয়, তাহলে এগুলোকে সত্য ভাবার কোনো কারণ নেই।

১৯. সমালোচনামূলক বর্ণনায় ইতিহাসের ভান করা

হাদিসগুলিকে ঐতিহাসিক বর্ণনা বলে দাবি করা হয় কিন্তু বাস্তবে সেগুলিকে ব্যাখ্যা করা হয়, যেন সেগুলি কুরআনের ব্যাখ্যা, সমালোচনামূলক ব্যাখ্যা ও সাধারণ ব্যাখ্যা। সাধারণ যুক্তি হল যে কোরান হল আইন, আর সুন্নাহ হল আইনের প্রয়োগ, তাই তারা হাদিসকে ছদ্মবেশে ব্যাখ্যা হিসাবে বিবেচনা করে। তাই ব্যক্তিরা ধর্মের কিছু জানা শোনার সাথে একটি নির্দিষ্ট আখ্যানের  মিল করার চেষ্টা করছেন। পরিহাসের বিষয় হল এমন হাদিস রয়েছে যেখানে নবী বলেছেন যে তাকে এমনভাবে দেখা উচিত নয়, কারণ তিনি কেবলমাত্র মানুষ এবং ত্রুটির প্রবণতা রয়েছে।

আবদুল্লাহ (বিঃ মাসউদ) বর্ণনা করেন, রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) আমাদের পাঁচ রাকাত নামায পড়ালেন। আমরা বললামঃ আল্লাহর রাসূল, নামায কি প্রসারিত হয়েছে? তিনি বললেনঃ ব্যাপার কি? তারা বললঃ আপনি পাঁচ রাকাত বলেছেন। তিনি (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বললেনঃ আমি তোমাদের মতই একজন মানুষ। তুমি যেমন মনে করো তেমনি আমিও মনে রাখি আর তুমি যেমন ভুলে যাও আমিও ভুলে যাই। অতঃপর তিনি (বিস্মৃতির ক্ষতিপূরণ) হিসেবে দুটি সিজদা করলেন।

-সহীহ মুসলিম ৫৭২

https://sunnah.com/muslim:572k

আরও দেখুন: https://sunnah.com/muslim:572l

রাফি বিন খাদিজ (রাঃ) বর্ণনা করেন যে, আল্লাহর রসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) মদীনায় এসেছিলেন এবং লোকেরা গাছে কলম করছিল। তিনি বললেনঃ তোমরা কি করছ? তারা বলল: আমরা তাদের কলম করছি, অতঃপর তিনি বললেন: তোমরা যদি তা না কর, তবে এটি তোমাদের জন্য ভাল হতে পারে, তাই তারা এই প্রথাটি ত্যাগ করে, এবং এর ফলে (খেজুর) কম ফল দিতে শুরু করে। তারা (নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর কাছে এ কথা উল্লেখ করলেন। তখন তিনি বললেনঃ আমি তো একজন মানুষ, তাই যখন আমি তোমাদেরকে দ্বীনের কোন বিষয়ে আদেশ দেই, তখন তা গ্রহণ কর এবং যখন আমি তোমাদের কোন বিষয়ে আদেশ দেই, যা আমার ব্যক্তিগত মতামত, সেক্ষেত্রে আমি একজন মানুষ মাত্র। ইকরিমা বর্ণনা করেছেন যে তিনি এমন কিছু বলেছেন।

-সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৩৬২

https://sunnah.com/muslim:2362

উম সালামা (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ আল্লাহর রাসূল (সাঃ) বলেছেন, “আমি একজন মানুষ মাত্র এবং তোমরা (পরস্পর বিরোধী পক্ষ) আমার কাছে তোমাদের মামলা নিয়ে আসো; এবং এটা হতে পারে যে তোমাদের মধ্যে একজন তার মামলা অন্যের চেয়ে বেশি বিশ্বাসযোগ্য উপায়ে উপস্থাপন করতে পারে এবং আমি যা শুনছি সে অনুযায়ী আমার রায় দিই। সুতরাং আমি যদি কখনও (ভুল করে) বিচার করি এবং একজন ভাইয়ের হক তার অপর (ভাইকে) দিয়ে দিই, তবে সে যেন তা গ্রহণ না করে, কারণ আমি তাকে কেবল একটি আগুনের টুকরো দিচ্ছি।"

-সহীহ আল-বুখারী, হাদীস নং ৭১৬৯

https://sunnah.com/bukhari:7169

এছাড়াও, এমনকি যে হাদিসগুলোকে সরাসরি তাফসির ( تفسير ) বোঝানো হয়েছে, এবং যেগুলো বহিমূর্খী বা দূর্বল বর্ণনা নয়, সেখানেও অনেক দ্বন্দ্ব রয়েছে। যেমন ইবনে কাসিরের তাফসির, যেটি পরস্পরবিরোধী ধাঁধাঁযুক্ত হাদিস দ্বারা শব্দ এবং আয়াতের অর্থ ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করে, কখনও কখনও একই অনুমিত ইসনাদের রাবী থেকে। যেমনটি আমরা পূর্ববর্তী প্রবন্ধে ইবনে কাসিরের সূরা ৬৮ নং আয়াত ১-এ নুন (نون) এর অর্থের ব্যাখ্যা পর্যালোচনা করেছি। সাক্ষাত্কারে ডক্টর লিটল যে উদাহরণটি উদ্ধৃত করেছেন তা ছিল সূরা ৭৪, আয়াত ৫০ এবং ৫১ থেকে এবং এর বিষয়ে বিরোধপূর্ণ বর্ণনা। "কাসওয়ারাতিন" ( قَسْوَرَةٍ ) শব্দের অর্থ কী? হাদিসের উপর নির্ভর করে এর অর্থ হতে পারে সিংহ, নেকড়ে, শিকারী, পুরুষদের দল, তীরন্দাজ বা মানুষের কণ্ঠ। যেন এটি যথেষ্ট সমস্যাযুক্ত নয়, এই বর্ণনাগুলির বেশিরভাগই একই ব্যক্তি ইবনে আব্বাস থেকে বর্ণিত বলে দাবি করেছিলেন যে এই সমস্ত ভিন্ন সংজ্ঞা নবীর নিজ থেকেই এসেছে।

كَأَنَّهُمْ  حُمُرٌ  مُّسْتَنفِرَةٌ

[৭৪:৫০] জেব্রাদের মত দৌড়াচ্ছে। 

فَرَّتْ  مِن  قَسْوَرَةٍ

[৭৪:৫১] যারা সিংহ থেকে পলায়ন করছে!

সুতরাং বিষয়টি কি এমন যে, নবীজির কোন ধারণা ছিল না যে, এর অর্থটি আসলে কী। অথবা তা নিয়ে যখন তখন তার মন পরিবর্তন করতে সমস্যা ছিল না। এ ধরনের কোন সমস্যা ছিল তা ভাবার পরিবর্তে, সম্ভব্য একটি দৃশ্যকল্প হচ্ছে যে কিছু লোক আয়াতটি পড়ল, তারপর তাদের নিজস্ব বুঝ নিয়ে এসেছিল এবং তাদের প্রত্যেক দল নিজ নিজ বোঝা সমর্থন করার জন্য একটি করে হাদিস তৈরি করেছিল। সুতরাং আবার, এটি এই সম্ভাবনার দিকে ইঙ্গিত করে যে অনেক হাদীস পরবর্তীকালে তৈরি করা হয়েছিল এবং স্বয়ং নবী থেকে উদ্ভূত হয়নি।

২০. কোরানিক অ্যামনেসিয়া (স্মৃতিভ্রংশ) কোরানিক পরিভাষার সাথে ধারাবাহিকতা বিচ্ছিন্ন 

পূর্বে আলোচনা করা হয়েছে, কুরআনের সাথে সাংঘর্ষিক হাদীসের একটি পুনরাবৃত্ত বিষয় রয়েছে। ডাঃ লিটল এটিকে কুরআনিক স্মৃতিভ্রংশ হিসাবে বর্ণনা করেছেন, যেখানে কুরআনের আয়াত এবং হাদীস সাহিত্যে যা বর্ণনা করা হয়েছে, উভয়ের বৃহত্তর প্রভাবের মধ্যে একটি ধারা বিচ্ছিন্নতা রয়েছে। তিনি যে উদাহরণটি উদ্ধৃত করেছেন তা হল সূরা ১১২, নিরঙ্কুশতা, আল-ইখলাস ( الإخلاص ) এটি নিসিন ধর্ম এবং ট্রিনিটি মতবাদকে বিছিন্ন করে। অথচ হাদীস সাহিত্য এ সম্পর্কে সম্পূর্ণ নীরব।

بِسْمِ  اللَّهِ  الرَّحْمَـٰنِ  الرَّحِيمِ

[১১২:০] পরম করুণাময়, পরম করুণাময় আল্লাহর নামে

قُلْ  هُوَ  اللَّهُ  أَحَدٌ

[১১২:১] ঘোষণা কর, তিনিই একমাত্র আল্লাহ।

اللَّهُ  الصَّمَدُ

[১১২:২] আল্লাহ অমুখাপেক্ষী।

لَمْ  يَلِدْ  وَلَمْ  يُولَدْ

[১১২:৩] তিনি কখনো কাউকে জন্ম দেননি। কিংবা তিনি জন্মগ্রহণ করেননি।

وَلَمْ  يَكُن  لَّهُ  كُفُوًا  أَحَدٌ

[১১২:৪] "কেউ তার সমকক্ষ নয়।"

২১. কোন কার্যকরী, সামঞ্জস্যপূর্ণ পদ্ধতি নয়

শক্তিশালী ও দুর্বল হাদীস নির্ণয়ের কোন কার্যকরী পদ্ধতি নেই। কেন একটি হাদিস সংগ্রাহকদের দ্বারা গৃহীত বা প্রত্যাখ্যান করা হয়েছিল তা সম্পূর্ণ নির্বিচারে তাদের মন মত ছিল- যদি তাদের একমাত্র উদ্দেশ্য হয় ঐতিহাসিক নির্ভুলতা। এর কারণ হল সংগ্রাহকরা কোন বিষয়ে তাদের নিজস্ব অবস্থান এবং তারা কার কাছ থেকে হাদীস সংগ্রহ করেছেন তা নিয়ে ব্যক্তিগত রায় দিয়েছিলেন, হাদিসের কোন অংশ তারা ধরে রাখতে চান তা বাদ দিয়ে। বুখারি বর্ণনার চেরি বা আংগুর ফল তোলা বিষয়ক বর্ণণার জন্য সমালোচিত হয়ে আসছে। হাদিস সংগ্রাহকরা সে বর্ণনাকে প্রত্যাখ্যান করবেন যদি এটি তাদের স্থানীয় ঐতিহ্যগত পক্ষপাত দ্বারা ব্যাপকভাবে প্রভাবিত বিষয়ে বা তাদের জানা বোঝার বিরুদ্ধে যায় ।

এছাড়া প্রকৃতপক্ষে, তারা তাদের নিজস্ব মান অনুসারে যে মেট্রিক প্রয়োগ করেছিল তা ছিল ব্যক্তির অনুমিত স্তরের তাকওয়া। এটি একাধিক দিক থেকে সমস্যাযুক্ত। প্রথমত, নিজের সম্প্রদায়ের মানুষের তাকওয়া নির্ধারণ করা অনেকটা কঠিন। উদাহরণ স্বরূপ, বিবেচনা করুন যে, নবীর সময়ে মুসলিমদের মধ্যে এমন কিছু মুনাফিক ছিলেন যা তিনি জানতেন না।

وَمِمَّنْ  حَوْلَكُم  مِّنَ  الْأَعْرَابِ  مُنَافِقُونَ  وَمِنْ  أَهْلِ  الْمَدِينَةِ  مَرَدُوا  عَلَى  النِّفَاقِ  لَا  تَعْلَمُهُمْ  نَحْنُ  نَعْلَمُهُمْ  سَنُعَذِّبُهُم  مَّرَّتَيْنِ  ثُمَّ  يُرَدُّونَ  إِلَىٰ  عَذَابٍ  عَظِيمٍ

[৯:১০১] তোমাদের আশেপাশে আরবদের মধ্যে মুনাফিক রয়েছে। এছাড়াও, শহরবাসীদের মধ্যে, যারা ভন্ডামীতে অভ্যস্ত তারা আছে। আপনি তাদেরকে জানেন না, কিন্তু আমি তাদেরকে জানি। আমি তাদেরকে দ্বিগুণ শাস্তি দেব, অতঃপর তাদেরকে ভয়ানক  আযাবের দিকে নিয়ে যাওয়া হবে। 

দ্বিতীয়ত, তারপর ও যদি এটি যথেষ্ট কঠিন মনে না করা হয়, তাহলে যে লোকটি একশত থেকে দুইশ বছর আগে বেঁচে ছিলেন এমন একজনের তাকওয়া নির্ধারণ করার জন্য কল্পনা করে চেষ্টা করছে।

বিশ্বাসযোগ্য প্রতিষ্ঠানগুলির দ্বারা একটি কঠোর প্রক্রিয়া তৈরি করার পরেই প্রমাণের সূত্র ব্যবহার করা বাস্তবে কাজ করবে এবং এটি প্রতিষ্ঠিত করা ও মেনে চলার আগে বিশ্বাসযোগ্যতা নির্ধারণের জন্য কাজ করবে না। এই কারণেই বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, ৯ম শতাব্দীর পরে, আমাদের কাছে মোটামুটি ভাল ঐতিহাসিক নথি রয়েছে, তবে তার আগে, আমাদের কাছে পরস্পরবিরোধী আখ্যানের একটি বিশাল উপাখ্যান রয়েছে। তাই বিষয়টি এর আগে ইতিমধ্যে সত্যতা ও বিশ্বস্ততার মানের বাহিরে চলে গেছে (ঘোড়াটি ইতিমধ্যেই শস্যাগার ছেড়ে চলে গেছে) এবং এই সত্যের পরে এই বিষয়গুলিকে উদ্ধার করার জন্য খুব বেশি কিছু করার উপায় নেই। 

সারসংক্ষেপ

উপসংহারে, ডাঃ লিটল সংক্ষেপে বলেন যে হাদীস ঐতিহাসিকদের জন্য একটি প্রাথমিক কাজ করে, যাতে তারা বিবিধ বিষয়গুলির একটি আভাস দেয় যা সংকলনের সময় লোকেরা আলোচনা করছিল। এর বাহিরে, প্রমাণিত না হওয়া পর্যন্ত সমস্ত হাদিসকে অবিশ্বাস্য বলে ধরে নেওয়া উচিত- ইতিমধ্যে উল্লেখ করা ২১টি পয়েন্টের ভিত্তিতে। এটি কীভাবে সম্ভব হতে পারে তা অনুমান করা কঠিন।

কিন্তু এমনকি যদি আমরা স্বীকার করি যে এমন কিছু সামান্য বিষয় থাকতে পারে যা নবী পর্যন্ত পরম্পরা গিয়েছে, কিন্তু  নিশ্চিতভাবে সেগেুলো নির্ধারণ করা অসম্ভব। এখন কুরআনের সাথে এর তুলনা করুন।

ذَٰلِكَ  الْكِتَابُ  لَا  رَيْبَ  فِيهِ  هُدًى  لِّلْمُتَّقِينَ

[২:২] এই কিতাবে কোন সন্দেহ নেই। মুত্তাকিদের জন্য পথনির্দেশ;

أَفَلَا  يَتَدَبَّرُونَ  الْقُرْآنَ  وَلَوْ  كَانَ  مِنْ  عِندِ  غَيْرِ  اللَّهِ  لَوَجَدُوا  فِيهِ  اخْتِلَافًا  كَثِيرًا

[৪:৮২] কেন তারা মনোযোগ সহকারে কুরআন অধ্যয়ন করে না? এটা যদি আল্লাহ ব্যতীত অন্যের পক্ষ থেকে হতো, তাহলে তারা এতে অনেক বৈপরীত্য খুঁজে পেত।

اللَّهُ  نَزَّلَ  أَحْسَنَ  الْحَدِيثِ  كِتَابًا  مُّتَشَابِهًا  مَّثَانِيَ  تَقْشَعِرُّ  مِنْهُ  جُلُودُ  الَّذِينَ  يَخْشَوْنَ  رَبَّهُمْ  ثُمَّ  تَلِينُ  جُلُودُهُمْ  وَقُلُوبُهُمْ  إِلَىٰ  ذِكْرِ  اللَّهِ  ذَٰلِكَ  هُدَى  اللَّهِ  يَهْدِي  بِهِ  مَن  يَشَاءُ  وَمَن  يُضْلِلِ  اللَّهُ  فَمَا  لَهُ  مِنْ  هَادٍ

[৩৯:২৩] আল্লাহ সর্বোত্তম হাদীস নাযিল করেছেন। একটি বই যা সামঞ্জস্যপূর্ণ, এবং উভয় পথ নির্দেশ করে (স্বর্গ ও নরক)। যারা তাদের রবকে ভয় করে, তাদের গা এতে শিহরিত হয়, তারপর তাদের দেহ ও মন আল্লাহর স্মরণে বিনম্র হয়ে যায়। এটা আল্লাহর হিদায়াত, তিনি যাকে চান তাকে এর দ্বারা হিদায়াত করেন। আর আল্লাহ যাকে পথভ্রষ্ট করেন, তার জন্য কোন হিদায়াতকারী নেই।

ضَرَبَ  اللَّهُ  مَثَلًا  رَّجُلًا  فِيهِ  شُرَكَاءُ  مُتَشَاكِسُونَ  وَرَجُلًا  سَلَمًا  لِّرَجُلٍ  هَلْ  يَسْتَوِيَانِ  مَثَلًا  الْحَمْدُ  لِلَّهِ  بَلْ  أَكْثَرُهُمْ  لَا  يَعْلَمُونَ

[৩৯:২৯] 

আল্লাহ একটি দৃষ্টান্ত পেশ করছেনঃ এক ব্যক্তির উৎস অনেক  (হাদিস) যারা পরস্পর বিরুদ্ধ ভাবাপন্ন এবং এক ব্যক্তির যার উৎস  শুধুমাত্র একটি সুসংগত উৎস (কুরআন); এই দুইয়ের অবস্থা কি সমান? প্রশংসা আল্লাহরই; কিন্তু তাদের অধিকাংশই এটা জানেনা।

وَكَذَٰلِكَ  جَعَلْنَا  لِكُلِّ  نَبِيٍّ  عَدُوًّا  شَيَاطِينَ  الْإِنسِ  وَالْجِنِّ  يُوحِي  بَعْضُهُمْ  إِلَىٰ  بَعْضٍ  زُخْرُفَ  الْقَوْلِ  غُرُورًا  وَلَوْ  شَاءَ  رَبُّكَ  مَا  فَعَلُوهُ  فَذَرْهُمْ  وَمَا  يَفْتَرُونَ

[৬:১১২] আমরা প্রত্যেক নবীর শত্রু-মানুষ ও জ্বীন শয়তানকে অনুমতি দিয়েছি, তারা প্রতারণা করার জন্য একে অপরকে অভিনব কথায় উদ্বুদ্ধ করতে। তোমার রব ইচ্ছা করলে তারা তা করত না। আপনি তাদের এবং তাদের মনগড়া উপেক্ষা করবেন।

وَلِتَصْغَىٰ  إِلَيْهِ  أَفْئِدَةُ  الَّذِينَ  لَا  يُؤْمِنُونَ  بِالْآخِرَةِ  وَلِيَرْضَوْهُ  وَلِيَقْتَرِفُوا  مَا  هُم  مُّقْتَرِفُونَ

[৬:১১৩] যারা পরকালে বিশ্বাস করে না তাদের মন এই ধরনের বানোয়াট কথা শুনে এবং মেনে নেয় এবং এবং যাতে তারা তা পছন্দ করে, আর তারা যে পাপ অর্জন করছে, তা যেন অর্জন করে।

أَفَغَيْرَ  اللَّهِ  أَبْتَغِي  حَكَمًا  وَهُوَ  الَّذِي  أَنزَلَ  إِلَيْكُمُ  الْكِتَابَ  مُفَصَّلًا  وَالَّذِينَ  آتَيْنَاهُمُ  الْكِتَابَ  يَعْلَمُونَ  أَنَّهُ  مُنَزَّلٌ  مِّن  رَّبِّكَ  بِالْحَقِّ  فَلَا  تَكُونَنَّ  مِنَ  الْمُمْتَرِينَ

[৬:১১৪] আমি কি আল্লাহ ব্যতীত অন্যকে আইনের উৎস হিসাবে খুঁজব, যখন তিনি এই কিতাবটি আপনার কাছে সম্পূর্ণরূপে অবতীর্ণ করেছেন?  আর ইতিপূর্বে যাদেরকে কিতাব দেওয়া হয়েছে, তারা জানে যে, এটা আপনার প্রতিপালকের পক্ষ থেকে আসা সত্য, সুতরাং আপনি সন্দেহ পোষণকারীদের মধ্যে যুক্ত হবে না। 

وَتَمَّتْ  كَلِمَتُ  رَبِّكَ  صِدْقًا  وَعَدْلًا  لَّا  مُبَدِّلَ  لِكَلِمَاتِهِ  وَهُوَ  السَّمِيعُ  الْعَلِيمُ

[৬:১১৫] আপনার পালনকর্তার বাণী সত্য ও ন্যায়ে সম্পূর্ণ। তার বাণীর কিছুই বাতিল হবে না, তিনি সর্বশ্রোতা, সর্বজ্ঞ।

وَإِن  تُطِعْ  أَكْثَرَ  مَن  فِي  الْأَرْضِ  يُضِلُّوكَ  عَن  سَبِيلِ  اللَّهِ  إِن  يَتَّبِعُونَ  إِلَّا  الظَّنَّ  وَإِنْ  هُمْ  إِلَّا  يَخْرُصُونَ

[৬:১১৬] যদি তুমি জমিনের উপর থাকা অধিকাংশ লোকের আনুগত্য কর, তবে তারা তোমাকে আল্লাহর পথ থেকে বিচ্যুত করবে। তারা কেবল অনুমানের অনুসরণ করে; তারা শুধু অনুমান করে।

إِنَّ  رَبَّكَ  هُوَ  أَعْلَمُ  مَن  يَضِلُّ  عَن  سَبِيلِهِ  وَهُوَ  أَعْلَمُ  بِالْمُهْتَدِينَ

[৬:১১৭] আপনার পালনকর্তা তাদের সম্পর্কে সম্যক অবগত আছেন যারা তাঁর পথ থেকে বিচ্যুত হয়েছে এবং যারা সৎপথে রয়েছে তাদের সম্পর্কেও তিনি সম্যক অবগত।

فَبِأَيِّ  حَدِيثٍ  بَعْدَهُ  يُؤْمِنُونَ

[৭৭:৫০] এর পর তারা আর কোন হাদীস তারা বিশ্বাস করছে?

Source:

ট্যাগ / কী-ওয়ার্ড:

অন্যান্য প্রবন্ধ

January 28, 2024
ট্রান্সজেন্ডার ও ইসলাম

ট্রান্সজেন্ডার বিষয়ে ইসলামের দৃষ্টিভঙ্গি কি?

জেন্ডার বিষয়ে ইসলামের ঐতিহাসিক সম্পর্ক ও ধারনা কি? ওস্তাদ মোবিন ভাইদ ব্লগিং থিওলজিতে ইসলামে ট্রান্সজেন্ডারিজম নিয়ে একটি আলোচনা করেছেন যা অনেকগুলো ডাইমেনশন থেকে ট্রান্সজেন্ডারিজমকে বিশ্লেষণ করেছেন।

December 30, 2023
আমরিন জামিয়িন ও বিশ্বাসীদের সংগঠিত হওয়ার রূপরেখা প্রসঙ্গে

যারা আমরিন জামিয়িন বা সংঘবদ্ধ কর্মের বিষয়ে অগ্রসর হতে চান তাদের জন্য করণীয় কি হতে পারে?

December 27, 2023
Amal Saleh / Good Deeds & Its Reward in the Quran

And give glad tidings to those who believe and do righteous good deeds, that for them will be Gardens under which rivers flow (Paradise). Every time they will be provided with a fruit there from, they will say: “This is what we were provided with before,” and they will be given things in resemblance and […]

December 8, 2023
Quran & Inductive Reasoning

In logic there are two ways of reasoning: inductive and deductive. Inductive reasoning uses a large number of specific observations to reach a general principle. Deductive reasoning, on the other hand, uses a premise (a general principle assumed as true) to decide what must be true in a specific case. An example of inductive reasoning […]

November 24, 2023
সুরা আত তুর - শব্দে শব্দে কুরআন পাঠ

কুরআনের ৫২তম সুরা, আয়াত সংখ্যা ৪৯ - শব্দে শব্দে পাঠ করছেন জনাব মোস্তফা ওয়াহিদুজ্জামান। যারা শব্দে শব্দে কুরআন আরবী ও বাংলায় অর্থসহ বুঝতে চান তাদের জন্য এই ভিডিওগুলো সহায়ক হবে বলে আশা করা যায়।

November 18, 2023
Is Hajj just for Muslims? What is the Purpose of Hajj?

Is Hajj just for Mulsims? What is the Purpose of Hajj according to the Quran? Who said that the Quran's Hajj is religious tourism?
With an open mind, let's let the Quran describe its Hajj for 'mankind' -- not just for 'muslims'.

November 15, 2023
People of the Book: What the Religions Named in the Qur'an Can Tell Us About the Earliest Understanding of "Islam" - Book Review

This study will look at the sects named in the Qur'ān to demonstrate that what the Muslim holy book describes as “Islam,” a verbal activity which - along with the higher grade of “faith” (īmān) - is a general action engaged in by existing religious communities to which the Qur’ān was orated, rather than being […]

November 12, 2023
Quran Translation Compared: The Study Quran - Video Review

The video compares The Study Quran to two English translations of the Quran: I compare "The (new) Study Quran" by Harper Collins (Edited by Dr. Sayyed Nasr), The Meaning of the Quran" by Muhammad Asad, and "The Holy Quran: Text and Commentary" by Yusuf Ali. Reviewed by Mark Sequeira Another Review by Caner Dagli Approaching […]